২৬শে অক্টোবর, ২০২১ ইং বিকাল ৩:২০
ব্রেকিং নিউজ
বোরহানউদ্দিনে দিন মজুরের গাছ কেটে জমি দখল করেছে চেয়ারম্যানের ভাই আলম মৃধা। নিউজে এসে সাংবাদিক লাঞ্চিত ভোলায় স্বামীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে স্ত্রী, নেপথ্যে সৎ ময়েকে ধর্ষণের অভিযোগ দৌলতখানে নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচারের অভিযোগ টাকা থাকলে পুলিশ-কোট কাচারী কিছুই না, ভোলায় থেমে নেই ইয়াবা বশিরের মাদক ব্যবসা আজ তোফায়েল আহমেদের জন্ম দিন ভোলার এসপি সরকার মোহাম্মদ কায়সারকে প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে বিদায় সংবর্ধনা কৃষক সংগঠনগুলোর নারী ও যুব খসড়া নীতিমালা তৈরী সমবায়ী সংগঠনগুলোর খসড়া নারী নীতিমালা তৈরী ভোলায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি রক্ষার দাবীতে জেলা আওয়ামীলীগের মানববন্ধন ভোলায় শেখ রাসেল স্মৃতি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্ভোধন করেন এমপি শাওন

চরফ্যাশনের মুজিবনগরবাসীর উপর চলছে নির্মম অত্যাচার, দেখার কেই নেই

Reporter Name
  • Update Time : Friday, April 2, 2021,
  • 233 Time View

জসিম রানা, ভোলা।
তেঁতুলিয়ার বুক চিরে বয়ে যাওয়া জলরাশির মাঝে মাথা উঁচু করে দাড়িয়ে আছে একটি সবুজ দ্বীপ। সেখানে কয়েক হাজার লোকের বসবাস। এবং ওই দ্বীপই তাদের জীবিকার উৎস। বলছি ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার দুলারহাট থানার মূল ভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ চর মুজিবনগরের কথা। এ চরের বেশিরভাগ পরিবার দৌলতখান উপজেলার নদী ভাঙন কবলিত। সরকার ১৯৫৯ সালে নদী ভাঙ্গনে প্রায় ২ হাজার অসহায় পরিবার ভূমিহীন হয়ে পরায় পুনর্বাসনের লক্ষ্যে ওই চরে প্রত্যেক নদী সিকস্তি পরিবারকে ৩ একর করে জমি বন্দোবস্ত দেন। ২০১০ সালের পর থেকে তাদের এসব জমি দখলে নিতে স্থানীয় ভূমিদস্যুরা অসহায় পরিবারের ওপর অমানবিক নির্যাতন শুরু করে। ইতোমধ্যে ভূমিদস্যুদের হামলা-মামলার শিকার হয়ে শত শত পরিবার ওই চর থেকে ঘর বাড়ি ফেলে রেখে অন্যত্র চলে গিয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে। এমনকি জমি দখল করতে রাতের আধাঁরে এসব পরিবারের ওপর হামলা, কুপিয়ে জখম ও হত্যাকান্ডের মত ঘটনাও ঘটেছে এ চরে। বর্তমানে ওই চরের বাসিন্দাদেও মধ্যে দখল আতঙ্ক বিরাজ করছে। অসহায় পরিবারগুলোকে হামলা-মামলা ও নির্যাতন করে করে তাদের বসতভিটা ও ভোগদখলীয় জমি অবৈধভাবে দখলে নিতে একটি প্রভাবশালী ভূমিদস্যু চক্র সক্রিয় রয়েছে। ভূমিদস্যুদের জমিদখল আতঙ্কে চরের বাসিন্দারা অসহায় হয়ে পড়েছে। দখল আতঙ্কে সহ¯্রাধিক পরিবার উদ্বেগ-উৎকন্ঠার মধ্যে দিনাতিপাত করছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, চরাঞ্চলের ভূমিদস্যু হারুন দেশপালি’র নেতৃত্বে, নুরুল ইসলাম, মনির হোসেন, ফারুক, ইউপি সদস্য মোহাম্মদ নবীসহ ১০/১৫ জনের একটি প্রভাবশালী ভূমিদস্যু ভূয়া ম্যাপ ও কাগজপত্র তৈরি করে চরাঞ্চলের অসহায় পরিবারের ভোগদখলীয় জমি জোড় করে দখল নিয়ে স্বনামে-বেনামে জমির মালিকানা তৈরি করে অন্যের ভোগদখলীয় জমি দখল করে নিচ্ছে। ওই চক্রের হামলা-মামলার শিকার হয়ে অনেক পরিবার সর্বসান্ত হয়ে পড়েছে বর্তমানে। কারো কারো বসতভিটা ও চাষের জমি দখল করে নেওয়ায় এখন তারা ঠিকানাহাড়া। জানাযায়, মুজিবনগর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন মৃত মোফাজ্জল ইসলামের ছেলে মোঃ খোকন। নদী সিকস্তি ওই পরিবারটি সুখেই ছিলো। নদীতে মাছ ধরে ও কৃষি কাজ করে স্বাচ্ছন্দে চলছিলো খোকনের পরিবার। বছর দু’য়েক আগে ভুমিদস্যুদের মিথ্যা মামলা শিকার হয়ে প্রায় দেড় বছর কারাভোগের পর জামিনে আসে। কিন্তু জেলে থাকা অবস্থায় ভূমিদস্যুরা ভূয়া কাগজ ও ম্যাপ তৈরি করে তার ৯ একর জমি দখল করে নেয় অন্যায় ভাবে। জামিনে মুক্ত হয়ে খোকন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে তার জমি উদ্ধারের চেষ্টা করেও সফল হয়নি। জমি-জমা হাড়িয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে খোকন ও তার পরিবার। খোকন জানায়, ভূমিদস্যুরা তার চাষের জমি দখল করেই থেমে যায়নি, তাকে বসতভিটা থেকে উচ্ছেদ করতে নানাভাবে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। ভুমিদস্যু হারুন ২ হাজার থেকে ২১’শ, ২৪শ’ থেকে ২৫’শ দাগে ভুয়া ম্যাপ তৈরি করে খোকনের ৯ একর জমি দখলে নিতে তার বিরুদ্ধে ৩০টি মামলা দায়ের করে। মিথ্যা মামলায় খোকন দেড় বছর ধরে জেল খাটেন। খোকন জেলে থাকা অবস্থায় জমি দখলে গেলে এতে খোকনের পরিবারের সদস্যরা বাধাঁ দিলে তাদেরকে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে তারা স্থানীয় হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নেন । এদিকে ৯ একর জমির সব ফসল লুট করে নিয়ে যায় ভুমিদস্যু হারুন বাহিনী। চরাঞ্চলের অসহায় নির্যাতিত খোকন আরও জানায়, বর্তমানে আমার ঘর বাড়িসহ ৩ একর জমি আমার দখলে রয়েছে। ওই জমি দখলে নিতেও হারুন বাহিনী মরিয়া হয়ে উঠেছে। ওই জমি দখলে নিতে আমার কলেজ-পড়ুয়া মেয়েকেও আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের করেছে। মামলা থেকে রক্ষা পায়নি আমার স্ত্রী ও অন্যান্য সন্তানরাও। বর্তমানে আদালতে আমার বিরুদ্ধে ৩০টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, আমি জেলে থাকা অবস্থায় আমার জামিনের খরচের জন্য বাড়ী থেকে কিছু গাছ বিক্রি করেন আমার স্ত্রী। ওই গাছগুলোও হারুন বাহিনী জোর করে নিয়ে যান। তিনি চরাঞ্চলে সাংবাদিক পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি জানান, আমার ক্রয়কৃত ৯একর জমির যে মালিকানা লোক দেখিয়ে জমি দাবি করেন হারুন বাহিনী তারা সবাই চরফ্যাশন উপজেলার ১৫ নং নজরুল নগর ইউনিয়নের বাসিন্দা বলা হয়েছে। এ বিষয় তিনি ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন হাওলাদারের সাথে যোগাযোগ করলে তারা কেউই ওই এলাকার বাসিন্দা নয় বলে একটি প্রত্যায়ন পত্র তাকে দেন। মূলত হারুন বাহিনী এ চরে ভুয়া ম্যাপ তৈরি করে মামলা-হামলা করে চরাঞ্চলের অসহায় পরিবাগুলোর জমি দখলে নেওয়ার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। তিনি এ নির্যাতনের প্রতিকার চেয়ে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন যার মামলা নং ০৭/২০১৯। অন্যদিকে এ চরের বাসিন্দা মোঃ কামাল, মোঃ ইউনুস,কৈলাশ চরণ বিশ^াষ, আবদুল মোতালেব তাদের কাছ থেকেও মামলা হামলার মাধ্যমে তাদের ভোগদখলীয় জমি জোর করে দখল করে চর ছাড়া করেছেন এ চক্র। তারাও মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এ ভুয়া ম্যাপ বানানো চক্রের বিচার দাবী করেন। এদিকে অভিযোগ অস্বীকার করে হারুন জানান, আমরা কারো কোান জমি দখল করিনি। এ বিষয় মুজিবনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল ওদুদ জানান, এ ঘটনায় দুলারহাট থানায় মামলার পর বিচার চলমান রয়েছে। যারা এ জমির সঠিক কাগজপত্র দেখাতে পাড়বে । তাদেরকে এ জমি বুঝিয়ে দেওয়া হবে। কেউ কারো জমি দখল করেনি। এ ব্যাপাারে চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রুহুল আমিন জানান, এ ব্যাপারে আমার কোন কিছু জানানেই। তবে আমি অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 LatestNews
Theme Dwonload From Ashraftech.Com
AshrafTech